NAVIGATION MENU

স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমে যুবকরাও চাকরিদাতা হতে পারেন: জিয়াউল আলম


বাংলাদেশ সম্ভাবনাময় দেশ। আমাদের জনশক্তিকে জনসম্পদে পরিণত করলে যেকোনো দেশ আমাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় হার মানতে বাধ্য। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপ্ন দেখেছিলেন দেশকে সোনার বাংলা গড়ার। 

জাতির পিতার দর্শন ছিল বৈষম্যহীন সমাজ ও গ্রাম উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন। এই দর্শন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য সন্তান ও প্রধানমন্ত্রীর আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করেন। 

সরকারের এসকল কার্যক্রম নিয়ে বাংলাদেশ পোষ্টের সাথে কথা বলেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম।

বাংলাদেশ পোস্ট: ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ অর্জনের আর মাত্র কতটুকু পথ পাড়ি দিতে বাকি আছে?

এন এম জিয়াউল আলম: আসলে ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ঘোষণার পর থেকে গত দশ বছরে বিশাল উন্নয়ন ঘটেছে। এদিকে ডিজিটালাইজেশনের প্রক্রিয়া বদলেছে। এখন, আমরা চতুর্থ শিল্প বিপ্লব (ফরআইআর) সম্পর্কে জানি। ডিজিটাল বাংলাদেশ একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। এটি আসলে কোথায় থামে তা বলা শক্ত। তবে আমরা বাকি বিশ্বের পাশাপাশি এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের যুবকরা দ্রুত নতুন প্রযুক্তি গ্রহণ করছে এ বছর, তারা ব্লকচেইন বাড়িতে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এনেছে। আমাদের ছাত্র, স্টার্টআপস এবং একাডেমিকরা বিশ্বব্যাপী অগ্রগতির সাথে লড়াই করে চলছে। এটি একটি বিশাল সাফল্য।

বাংলাদেশ পোস্ট: একটি উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে অতীতমুখী শিল্প-কারখানার পরিবর্তে চতুর্থ শিল্পযুগ উপযোগী শিল্প-কারখানা প্রতিষ্ঠা করা অপরিহার্য। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী দক্ষ জনশক্তি গড়ার লক্ষ্যে সরকার কিভাবে এগিয়ে যাচ্ছে?

এন এম জিয়াউল আলম: এআই রোবোটিক্সের সাথে আসার সাথে সাথে আমরা এটুআই এবং অন্যদের সাথে আমাদের কর্মসংস্থানের প্রভাবের মূল্যায়ন করতে অধ্যয়ন করেছি। আমরা আমাদের পদ্ধতিতে অধ্যয়ন এবং নতুন প্রযুক্তি সহ এগিয়ে চলেছি। তবে দক্ষতা প্রথমে আসে। অটোমেশনের পিছনে, সর্বদা একটি ম্যানুয়াল প্রক্রিয়া থাকে। সুতরাং, আমাদের দক্ষ জনশক্তি প্রয়োজন এবং আমরা এটি নিয়ে কাজ করছি।

বাংলাদেশ পোস্ট: আপনি একবার গনমাধ্যমকে বলেছিলেন ‘সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার উভয় খাতে আমরা এগিয়েছি। ফ্রিল্যান্সিংয়ে আমাদের আয় বেড়েছে। এখন আমাদের টার্গেট ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি ও সাইবার সিকিউরিটি।’ এক্ষেত্রে বাংলাদেশ কিভাবে অবদান রাখতে পারে?

এন এম জিয়াউল আলম: আমরা বহু পুরষ্কার ঘরে তুলে রেখে সীমান্ত প্রযুক্তিতে স্থান তৈরি করেছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির সীমান্ত প্রযুক্তি ভিত্তিক ল্যাব রয়েছে। আমরা ১০ টি পরিষেবা স্বয়ংক্রিয়করণ করেছি এবং সীমান্ত প্রযুক্তি ব্যবহার করব। শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। ইন্ডিয়া টেক মাহিন্দ্রা আমাদের সহায়তা করবে। তাছাড়া চিন ও জাপানসহ অন্যান্য দেশের সাথে সহযোগিতা চলছে। এছাড়াও সাইবার সুরক্ষা ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ হয়ে ওঠে। সরকার ২০১৮ সালে সরকার সাইবার সিকিউরিটি আইন প্রণয়ন করেছে। পর্যায়ক্রমে প্রচারণা শুরু করা হয়েছে। 

গুরুত্বপূর্ণ সাইবার স্থাপনাগুলি তদারকি করার জন্য আমাদের কাছে ২৪/৭ ‘সাইবার ইভেন্ট প্রতিক্রিয়া দলগুলি’ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি সাইবার সুরক্ষা কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। যেটি আমাদেরকে দিক-নির্দেশনা দিচ্ছে।

বাংলাদেশ পোস্ট: কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য খাতে সাশ্রয়ী সেবা প্রদান করার লক্ষ্যে সরকার ব্লকচেইন প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবনী সমাধান তৈরিতে উৎসাহিত করছে। ব্লকচেইন প্রযুক্তি ভিত্তিক উদ্ভাবনীতে অগ্রগতি কতটা?

এন এম জিয়াউল আলম: বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থী, সরকারী সংস্থা (অর্থাৎ) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), এটুআই এবং অন্যান্য ব্লকচেইন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে। জালিয়াতি রোধ করতে এখন বিসিসির শংসাপত্র পরিচালন ব্লকচেইনে চলছে। এটি স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে ব্লকচেইন প্রযুক্তি কার্যকর করার জন্য সরকার কৌশলও প্রণয়ন করেছে।

বাংলাদেশ পোস্ট: উদ্যোক্তারা প্রায়ই দাবি করেন ইউনিয়ন পর্যন্ত হাই-স্পিড ইন্টারনেট নিশ্চিত ও সহজলভ্য করতে। ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের পাশাপাশি সরকারীভাবে আগামীতে কোন উদ্যোগ নেওয়া হবে কিনা?

এন এম জিয়াউল আলম: ইউনিয়নগুলিতে এখন হাই-স্পিড ইন্টারনেট পাওয়া যায়। আমরা সরকারের “আমার গ্রাম, আমার শহর” উদ্যোগ নিয়ে কাজ করার জন্য প্রকল্প হাতে নিচ্ছি। প্রান্তিক পর্যায়ে যুক্তিসঙ্গত ব্যয়ে ইন্টারনেট নিশ্চিত করতে বিটিসিএল তদারকি করছে।

বাংলাদেশ পোস্ট: ২০১২ সালে সিলেট বিভাগের ডিজিটাইজেশন কার্যক্রমে অসামান্য অবদানের জন্য জাতীয় পর্যায়ে ‘ইনোভেশন পুরষ্কার’ পেয়েছিলেন। অভিজ্ঞতা থেকে বলবেন, দেশে একটি টেকসই স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে তোলার জন্য কি কি বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া দরকার বলে আপনি মনে করেন?

এন এম জিয়াউল আলম: আমরা আমাদের প্রধানমন্ত্রী, উপদেষ্টা এবং প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী সূচনাগুলির জন্য কাজ করছি। সরকার স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক অবকাঠামো, সহায়তা এবং প্রণোদনা সরবরাহ করেছে। 

প্রধানমন্ত্রী ২০১-19-১। অর্থবছরের শুরুতে অর্থ বরাদ্দ করেছেন। প্রার্ট-বীজ, বীজ এবং প্রারম্ভকালীন - সমস্ত পর্যায়ে পরামর্শদাতা সহায়তা দেওয়ার জন্য আমাদের "ইনোভেশন ডিজাইন এবং এন্টারপ্রেনারশিপ একাডেমি (আইডিইএ) প্রকল্প রয়েছে"। প্রধানমন্ত্রী বেশ কয়েকদিন আগে বলেছিলেন, ‘আমাদের যুবকরা চাকরি চাইবে না তারা চাকরি দেবে।’  কেবলমাত্র স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম, যদি আমাদের যুবকরা যোগ দেয় তবে তাদের চাকরিদাতায় পরিণত করবে।

বাংলাদেশ পোস্ট: সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে আইটি ফ্রিল্যান্সারদের জন্য জাতীয়ভাবে একটি নিবন্ধন ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছিলো? এ ব্যাপারে অগ্রগ্রতি কতটুকু?

এন এম জিয়াউল আলম: আমরা ইতিমধ্যে ভেন্ডর প্রতিষ্ঠানের সাথে সমঝোতা স্বারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছি এবং এটি এখন উদ্বোধনী পর্যায়ে। সম্ভবত, আমরা শীঘ্রই এটি চালু করব। জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ শংসাপত্র নিয়ে কাজ করছে এবং আমরা তাদের একটি পরিচয় দিচ্ছি।

বাংলাদেশ পোস্ট: ফ্রিল্যান্সারদের দাবী পেপ্যাল বাংলাদেশে এলে আউটসোর্সিং ত্বরান্বিত হতো। ২০২১ সালের মধ্যে ৫ বিলিয়ন ডলার অর্জন এবং জিডিপিতে আইসিটি খাতের অবদান ১ শতাংশ বাড়ার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ সহজ হতো। দেশে পেপ্যালের আসার ব্যাপারে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য সুসংবাদ আছে কিনা?

এন এম জিয়াউল আলম: পেপাল নিয়ে আলোচনা চলছে। প্রতিমন্ত্রী দূতাবাসের মাধ্যমে তাদের কাছে চিঠি লিখেছিলেন। এখানে ব্যাংক লেনদেনের সাথে সম্পর্কিত কয়েকটি সমস্যা রয়েছে যার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অন্যদের জড়িত হওয়া দরকার।  আমরা একটি সমন্বিত পরিষেবা বিতরণ প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে আমাদের আর্থিক লেনদেনকে স্বয়ংক্রিয়করণ করছি। আশা করি পেমেন্ট গেটওয়ের বিষয়টি ফ্রিল্যান্সারদের পক্ষে আসবে।

বাংলাদেশ পোস্ট: প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদের নির্দেশনায় একটি ডেটা প্রাইভেসি আইন করার উদ্যোগ নেওয়ার কথা আছে। আইনে কোন ব্যাপারগুলোতে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে এবং এটি এখন কোন পর্যায়ে আছে?

এন এম জিয়াউল আলম: এই আইনটি এখন খসড়া পর্যায়ে আছে। আমারা প্রথমে ইংলিশে করছি। পরে এটিকে বাংলায় রূপান্তরিত করবো। আমরা বেশ কয়েকবার বসেছি এটা নিয়ে। এটা সবার জন্য ডেটা প্রাইভেসি নিশ্চিত করবে, সেভাবেই তৈরি করা হচ্ছে। 

বাংলাদেশ পোস্ট: উন্নত দেশগুলিতে, শিশুরা স্কুলে কোডিং শেখা হয়। সরকার স্কুলগুলিতে কোডিং চালু করার জন্য কোনও উদ্যোগ নিয়েছে?

এন এম জিয়াউল আলম: আসলে কোডিং গুরুত্বপূর্ণ। সরকার, বিশেষত, আমাদের উপদেষ্টা এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। নীতিনির্ধারকরাও সবুজ সংকেত দেন। আমরা যদি শিশুদের কোডিং করতে শিখতে পারি তবে তারা অলৌকিক ঘটনা তৈরি করবে। শেখ রাসেল ল্যাবগুলির ব্যবহার কীভাবে কোডিং করা যায় সে সম্পর্কে শিশুদের শিক্ষামূলক ত্বরান্বিত করতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এই বিষয়টি বিবেচনা করছে।

বাংলাদেশ পোস্ট: বর্তমানে দেশে যে পরিমাণ সাইবার অপরাধ সংঘঠিত হয় তার মধ্যে প্রায় ৭০ শতাংশ ভুক্তভোগী কিশোরী। ডিজিটাল নিরাপত্তায় মেয়েদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে জাতীয় উদ্যোগ নেওয়ার পরিকল্পনা আছে কিনা?

এন এম জিয়াউল আলম: সচেতনতার অভাবে মেয়েরা প্রায়ই সাইবার অপরাধের শিকার হয়। এটি প্রতিরোধ করা যেতে পারে, যদি তারা সচেতন হন এবং ডিজিটাল নৈতিকতা সম্পর্কে শিখেন; পাসওয়ার্ড শেয়ার না করা, কোনও সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা সংবাদ শেয়ার না করা ইত্যাদি। কোনও মেয়ে সচেতন হলে সে তার পরিবারে সচেতনতা বাড়ায়। আমরা প্রচারণা চালিয়ে এসেছি এবং আরও কিছু করার আশা করি।

বাংলাদেশ পোস্ট: চতুর্থ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০শে ডিসেম্বর পালিত হবে। সরকার কীভাবে এটি উদযাপনের পরিকল্পনা করবে?

এন এম জিয়াউল আলম: গত বছর আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসটি উত্সব দ্বারা উদযাপন করেছি। এই বছর আমরা করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মুখোমুখি। ‘যদিও দূরত্ব বজায় রাখার পরেও সংযুক্ত রয়েছে প্রতিপাদ্য দিবসটি উদযাপনের জন্য ভার্চুয়াল এবং হাইব্রিড উভয়ই প্রোগ্রামের আয়োজন করা হবে। রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী এবং অন্যরাও এতে যোগ দেবেন বলে আশাবাদী।

বাংলাদেশ পোস্ট: বর্তমানে আইসিটির উপর উচ্চ শিক্ষা নিতে প্রচুর শিক্ষার্থীরা আসছে। তাদের জন্য আপনার কি উপদেশ থাকবে। 

এন এম জিয়াউল আলম: আইটি একটি মৌলিক জ্ঞান। প্রত্যেকেরই প্রাথমিক জ্ঞান থাকা উচিত তবে কেউ আইটি ইঞ্জিনিয়ার হতে চাই; কেউ যদি রোবোটিক্স বা ব্লকচেইনে বড় ইঞ্জিনিয়ার হতে চায়, তারপর সে হয়তো সেদিকে যাবে। 

কিন্তু, বেসিক নলেজ অন আইটি, এটা  খুব এজেনশিয়াল। আমরা কাজ করছি। সরকার সেই ব্যবস্থাটাই করছেন।

বাংলাদেশ পোস্ট: আপনাকে ধন্যবাদ

এন এম জিয়াউল আলম: আপনাকে ধন্যবাদ।

বান্না/ ওমা/ এস এস