NAVIGATION MENU

সেরাম থেকে আরও ৪ কোটি ডোজ টিকা কিনবে বাংলাদেশ


বাংলাদেশ ফের ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে আরো ৪ কোটি ডোজ করোনার ভ্যাকসিন কেনার চেষ্টা করছে। এ নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সেরামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য সচিব আব্দুল মান্নান বলেছেন, কোভ্যাক্সের কাছ থেকেও ৬ কোটি ৮০ লাখ টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশের।যার মধ্যে জুনের মধ্যে ১ কোটি ডোজের মত পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ নতুন করে টিকা কেনার যে চেষ্টা শুরু করেছে, সে বিষয়ে সেরাম ইনস্টিটিউট কোনো মন্তব্য করেনি।সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে প্রথম চুক্তির আওতায় যে তিন কোটি ডোজ টিকা বাংলাদেশ সরকার কিনেছে, তা সরবরাহের দায়িত্বে আছে বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস।

তারাই বাংলাদেশে সেরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড টিকার ‘এক্সক্লুসিভ ডিস্ট্রিবিউটর’।তবে ভবিষ্যতে সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে টিকা আনার কাজটি কাদের মাধ্যমে করা হবে, বাংলাদেশ সরকার এখনও ‘সে সিদ্ধান্ত নেয়নি’ বলে স্বাস্থ্য সচিব জানিয়েছেন।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের চিফ অপারেটিং অফিসার (সিওও) রাব্বুর রেজা বলেছেন, বাড়তি অর্ডারের বিষয়টি নির্ভর করবে সরকারের ওপর।  

এদিকে আগামী জুন মাসের আগে কোভ্যাক্স থেকে ১ কোটি ৯ লাখ ৮ হাজার টিকা পাবে বাংলাদেশ। কোভ্যাক্সের আওতায় বিশ্বজুড়ে বিনা মূল্যে টিকা সরবরাহের একটি পরিকল্পনা সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে।

ভারতসহ ঘানা, আইভরি কোস্ট, দক্ষিণ কোরিয়া,কলম্বিয়া প্রথম দফায় কোভ্যাক্সের টিকা পেয়েছে। ইতিমধ্যে নাইজেরিয়া, অ্যাঙ্গোলা, কম্বোডিয়াতেও কোভ্যাক্সের প্রথম দফার টিকা পৌঁছেছে।

কঙ্গোতেও টিকা পৌঁছানোর কথা রয়েছে।পরিকল্পনা অনুযায়ী, জুনের আগে সবচেয়ে বেশি টিকা যে দেশগুলো পাবে, তার মধ্যে বাংলাদেশ আছে ৪ নম্বরে।

এ ছাড়া অন্যদেশগুলো হলো নাইজেরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান ও ব্রাজিল। আর আগামী মে মাসের শেষ নাগাদ বিশ্বের ১৪২টি দেশে ২৩ কোটি ৮২ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করা হবে।

করোনা প্রতিরোধে দরিদ্র এবং মধ্যম আয়ের দেশগুলোকে বিনা মূল্যে টিকা সরবরাহ করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নেতৃত্বে বৈশ্বিক উদ্যোগ হলো কোভ্যাক্স। এই উদ্যোগে প্রথম টিকা পেয়েছে আফ্রিকার দেশ ঘানা।

কোভ্যাক্স কর্মসূচিতে ১৯৮টি দেশ অংশ নিয়েছে। তবে সব দেশই প্রথম দফায় টিকা সরবরাহের আওতায় আসছে না।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস ধনী দেশগুলোর সমালোচনা করে বলেন, ‘আমরা বিশ্বের সব দুর্দশাগ্রস্ত মানুষকে সুরক্ষা দিতে চাই।

এস এস