ন্যাভিগেশন মেনু

জিপির বিরুদ্ধে ‘ভারসাম্য’ নষ্টের অভিযোগ রবি, বাংলালিংক, টেলিটকের


দেশের তিনটি মোবাইল ফোন অপারেটর- রবি, বাংলালিংক এবং টেলিটক, বাংলাদেশ টেলিযোগযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) একটি যৌথ চিঠিতে গ্রামীণফোন গ্রাহকদের বিনামূল্যে ফ্রি মিনিট দেওয়ার সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিষয়ে পুনর্বিবেচনা করার অনুরোধ করেছে।

সোমবার (১১ মে) টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রকের চেয়ারম্যান জহিরুল হকের কাছে এই চিঠি পাঠানো হয়।

যৌথ এ চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, বাংলালিংকের সিইও এরিক অস এবং টেলিটকের এমডি শাহাব উদ্দিন।

স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে বলা হয়, বাজারভিত্তিক পদক্ষেপকে সিএসআরের মোড়কে উপস্থাপন করায় প্রতিযোগিতার ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে।

চিঠিতে আরও তারা বলছে, গ্রামীণফোনের এ ব্যবসায়িক প্রতারণা অনতিবিলম্বে বন্ধ করে তাদের ওপর প্রযোজ্য এসএমপি (সিগনিফিক্যান্ট মার্কেট পাওয়ার) নীতিমালার বাস্তবায়ন করতে হবে। এটি না করা হলে ছোট অপারেটরদের এ মার্কেট থেকে ব্যবসা গুটিয়ে চলে যাওয়া ছাড়া আর কোনো বিকল্প থাকবে না।

গত শুক্রবার গ্রামীণফোনের তরফ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দেয়া হয়, করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে জিপি সিম ব্যবহারকারী যারা এপ্রিল মাসে কোনো টাকা রিচার্জ করতে পারেননি বা যেসব ব্যবহারকারীর ব্যালেন্স একেবারেই ছিল না, এমন এক কোটি গ্রাহককে ১০ কোটি মিনিট ফ্রি টকটাইম দেয়া হবে। পাশাপাশি করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সনদপ্রাপ্ত ২৫ হাজার চিকিৎসককে আগামী ৬ মাসের প্রতিমাসে এক টাকার বিনিময়ে ৩০ জিবি করে মোবাইল ডাটা দেওয়া হবে। এছাড়াও সংকট মোকাবেলায় ১০০ কোটি টাকার বিভিন্ন উদ্যোগের ঘোষণা দেয় দেশে শীর্ষ এ মোবাইল কোম্পানী।

তিনটি মোবাইল ফোন অপারেটরের দাবি প্রস্তাবটি কিছু কিছু বিদ্যমান বিধি লঙ্ঘন করেছে বলে বিষয়টি বিতর্ক সৃষ্টি করেছে।

চিঠিতে এই তিন অপারেটর বলছেন,  সংকটকালীন এ সময়ে শীর্ষ অপারেটর ফ্রি মিনিট ও ডেটা প্রদানের নামে মূল্য যুদ্ধ ঘোষণা করে বাজার ভারসাম্য নষ্ট করে ছোট অপারেটরদের কোণঠাসা করে ফেলতে চাইছে। বন্ধ সিম চালুর অফার হিসেবে ১ কোটি মিনিট ফ্রি দেওয়ার কথা বলছে গ্রামীণফোন, যা আসলে একটি মার্কেটিং অফার। অথচ এটিকে করোনা দুর্যোগ মোকাবিলায় সিএসআর কার্যক্রম বলা হচ্ছে, যা জনগণের সঙ্গে প্রতারণার শামিল।

চিঠিটিতে আরও বলা হয় বিটিআরসির এসএমপি অপারেটরকে শিল্পে স্তরের প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে পুনরায় নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রয়োগ করা উচিত।

এমন অবস্থায় ছোট অপারেটরদের টিকে থাকার স্বার্থে এসএমপি বিধিমালার বাস্তবায়ন জরুরি ভিত্তিতে কার্যকর করার দাবি জানানো হয় রবি, বাংলালিংক ও টেলিটকের যৌথ চিঠিতে।

বিটিআরসির তথ্য মতে, দেশের মোট ১৬.৬১ কোটি মোবাইল গ্রাহকদের মধ্যে জিপি ৪৬ শতাংশ, রবি ৩০ শতাংশ, বাংলালিংক ২১ শতাংশ এবং রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিটকের তিন শতাংশ গ্রাহক রয়েছে।

ওআ