NAVIGATION MENU

ইন্দো-বাংলা অর্থনীতির সমৃদ্ধি বাড়াবে রামগড়-সাব্রুম সেতু


খাগড়াছড়ির রামগড় ও ভারতের সাব্রুম এলাকায় ফেনী নদীতে নির্মাণাধীন ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সেতু-১ এর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রীমতী রিভা গাঙ্গুলী দাস।

রবিবার বেলা ১১টায় দিকে এ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন তিনি। মৈত্রী সেতু-১ ও স্থলবন্দর নির্মাণ কাজে সন্তোষ জানিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ভারতের এ হাইকমিশনার।

এসময় রিভা গাঙ্গুলী বলেন, এ সেতুর ফলে এ অঞ্চলে অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি বাড়বে। ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যসহ অন্যান্য রাজ্যের সাথে বাংলাদেশের সড়ক যোগাযোগ আরও বেশী সহজ হবে। চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বন্দর ব্যবহার করে কম সময়ে উভয় দেশ আমদানি-রপ্তানি করতে পারবে। এ সেতুর মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে একটি ভাতৃত্বের সেতুবন্ধন তৈরি হবে।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ২০১৭ সালে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু-১ এর কাজ শুরু হয়।

আগামী বছরের এপ্রিলের মধ্যে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ করা হবে। ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে মৈত্রী সেতুর কাজ শেষ হওয়ার পরপর স্থলবন্দর ও অন্যান্য কার্যক্রম শুরু হবে। 

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, ৪৩ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল তারিকুল হাকিম, খাগড়াছড়ি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাউদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু ও জুয়েল চাকমা, , রামগড় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদিপ কুমার কার্বারী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ইসরাতসহ বিভাগীয় কর্মকর্তারা।


এমআইআর  /এসএস